parallax background

ফেলনা কাঁচের বোতল থেকে তৈরি হোক দারুণ কিছু!

by Sadia Islam Bristi

কখনো দুধের বোতল, কখনো কেচাপ কিংবা জুস- একটা দুটো করতে করতে ঘরে অনেক অনেক কাঁচের বোতল জমে যায়। শেষ পর্যন্ত ভাঙ্গারির দোকানে খুচরা মূল্যে বোতল বেঁচে দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায়ই থাকে না! তবে বাতিল এই বোতল থেকে মুক্তি পাওয়ার এটাই কিন্তু একমাত্র উপায় নয়। পুরনো আর ফেলনা জিনিসপাতি দিয়ে ঘরের জন্য দারুণ কিছু তৈরি করার ব্যাপারটা খুব একটা নতুন কিছু নয়। কাঁচের বোতল দিয়ে দারুণ কিছু তৈরি করা তেমনই একটি ব্যাপার। ঘরে হাতের কাছে যা আছে তা দিয়েই ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলতে পারবেন আপনি।

তো, সাজিয়ে তুলতে চান আপনার ঘরকে ফেলনা কাঁচের বোতল দিয়ে? চলুন, কাঁচের খালি বোতলের দিয়ে তৈরি দারুণ কিছু ঘর সাজানোর উপায় জেনে নেওয়া যাক-

১। আল্পনা আঁকা কাঁচের বোতল

বিশেষ কোন অনুষ্ঠান হোক কিংবা ঘর সাজানোর জন্য, কাঁচের বোতলে নানারকম রঙিন আল্পনা আপনি এঁকে ঘরটাকে সাজিয়ে নিতেই পারেন।

এজন্যে প্রথমে বেবি অয়েল বা গরম পানি ব্যবহার করার মাধ্যমে বোতলের গায়ে লেগে থাকা কাগজ ও আঠা দূর করুন। এরপর কাঁচের গায়ে অন্য রঙ ভালোভাবে যেন বসে তা নিশ্চিত করতে প্রথমে ঘন সাদা এনামেল বা অ্যাক্রিলিক এনামেল রঙ ব্যবহার করুন। এরপর নিজের পছন্দ অনুযায়ী আল্পনা এঁকে শোপিস হিসেবে পছন্দমত স্থানে সাজিয়ে রাখুন।

২। আলোর বোতল

ঘরের সাদাটে আলোটা খুব একঘেয়েমি লাগছে? দ্রুত সমাধান হিসেবে বাতিল কাঁচের বোতলকে ব্যবহার করুন। নিজের পছন্দসই হালকা রঙ দিয়ে বোতলকে রাঙিয়ে দিন। এবার বোতলের ভেতরে বাল্ব স্থাপন করুন। ব্যস! কাঁচের রকমারি আলো ছড়িয়ে পড়বে আপনার ঘরে।

তবে ইচ্ছে করলে অনেকগুলো কাঁচের বোতলের মুখ সুতো দিয়ে বেধে সেগুলোতে ঝুলিয়ে দিতে পারেন ছাদে আটকানো কোন কাঠের হ্যাঙ্গারের সাথে। দেখতে অনেকটা ঝাড়বাতির মতো দেখাবে। সেক্ষেত্রে একেক বোতলকে একেক রঙে রাঙাতে পারেন আপনি।

৩। মরিচবাতির মায়া

টিমটিমে চিকন মরিচবাতির সাথে তো নিশ্চয় পরিচয় আছে। ইচ্ছে করলে কাঁচের বোতলে রঙ মাখিয়ে তার ভেতরে পছন্দসই মরিচবাতিকে আটকে রাখতে পারেন আপনি। আবার ইচ্ছে হলে একেক রঙ-এর মরিচবাতিকে একেকটি বোতলে রেখে দিতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে বোতল রঙয়ের ঝামেলায় না গেলেও চলবে!

৪। ফুলদানি বা কলমদানি

কাঁচের বোতলকে রঙ করে শুধু শোপিস করে কেন রাখবেন? ইচ্ছে হলে আপনার ঘরের ফুলদানি, কিংবা শিশুর পছন্দের কার্টুন আঁকা কলমদানি হিসেবে ব্যবহার করুন দারুণ এই জিনসটিকে। ঘরের ছোটখাটো কাজ থেকে শুরু করে বিভিন্ন জিনিস রাখতেও আপনি এটাকে ব্যবহার করতেই পারেন! তবে হ্যাঁ, খেয়াল রাখুন যেন বোতলটি মোটেই স্বচ্ছ না নয়!

৫। সুতোয় মোড়া কাঁচের বোতল

কাঁচের বোতলে রঙ করা নিয়ে তো অনেক কথা হলো। কেমন হয় যদি বোতলটাকে সুতোর বুননে মুড়িয়ে ফেলা যায়? খুব সহজেই কাজটি করতে পারেন আপনি। এজন্য অবশ্য বোতলের মাথা থেকে সুতোটাকে ভালোভাবে পেঁচিয়ে এরপর পুরো বোতলটাই আঠার সাহায্যে সুতো দিয়ে বেধে ফেলতে হবে। প্রতি এক বা দুই প্যাঁচ পরপর সুতোয় ভালোভাবে আঠা দিয়ে নিন। তবে দড়ির শেষ প্রান্ত ভালোভাবে আটকানো আছে কিনা এবং পুরো বোতলে শক্তভাবে দড়ি বাধা হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন। এরপর ইচ্ছেমত প্লাস্টিকের ফুল বা লেইস আঠা দিয়ে লাগিয়ে নিন।

৬। উইশিং বটল

কাঁচের বোতলের শুধু বাইরে কেন, ভেতরটাও সাজিয়ে দিলে কেমন হয়? রঙিন ম্যাজিক বাবল, পাথর, নিজের পছন্দের কোন চরিত্র- ইচ্ছেমতও বোতলে ভরে সেটাকে সাজিয়ে রাখতে পারেন আপনি বসার ঘরের শোকেইসে।

কোথায় পাবেন জিনিসপাতি?

বোতল রাঙানোর জন্য যে রঙ প্রয়োজন তা যেকোনো রঙয়ের দোকানেই আপনি পেয়ে যাবেন। এছাড়াও এক্ষেত্রে আপনার দরকার হবে চমৎকার কিছু পেইন্টিং ব্রাশের। সাথে অবয়ব টানার জন্য পেন্সিল। এই সবকিছু আপনি একসাথে পেইন্টিং-এর জিনিসপত্র পাওয়া যায় এমন দোকানে পাবেন।

গাউসিয়ার বিশাল রঙয়ের দোকানগুলো, কিংবা আজিজ সুপার মার্কেটের রঙয়ের দোকান হতে পারে আপনার পছন্দসই স্থান। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে, হয়তো আপনার বাসার পাশেও এই সব উপকরণ পেয়ে  যাবেন আপনি। সাথে দড়ি, মরিচবাতি আর পছন্দসই অন্যান্য উপকরণও পেয়ে যাবেন আশেপাশেই।

তো কী ভাবছেন? এবার থেকে ঘরের বাতিল কাঁচের বোতলগুলো কি ফেলে দেবেন, নাকি সেগুলো দিয়ে বানিয়ে ফেলবেন দারুণ কিছু?

  •  
  •  
  •  
  •   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *