parallax background

দেয়ালের ক্যানভাসে সাজুক স্টাইলিশ আর্টওয়ার্ক

By Tasnim Jarin

কাগজ-কলম হোক কিংবা দেয়াল, রঙ-তুলির আঁচড়ে আঁকিবুঁকি করতে আমাদের সবারই কম-বেশি ভালো লাগে। এক্সপার্ট হোক বা না হোক ছোটবেলার আর্ট ক্লাসের সেই ঘুড়ি আঁকা, গ্রামের দৃশ্য আঁকা কিংবা দারুণ কোন ডিজাইনে মনের মাধুরী মিশিয়ে রঙ করার এই প্রশান্তি যেন ছোট-বড় সবার জন্যই সমান। আর তাই তো যারা শখের বশে আঁকাআঁকি করেন, একটা সময় তারাই হয়তো পেশা হিসেবেই নিয়ে নেন শখের এই কাজটিকে। আর বাকিরা আর্টিস্ট না হতে পারলেও ঘরের দেয়ালে ডিজাইন করে নেন স্টাইলিশ আর্টওয়ার্ক। পেইন্ট, ইলিউশনে বা টেক্সচার্ড পেইন্টের পাশাপাশি ঘরের বিভিন্ন দেয়ালে ভিন্ন লুক আনতে মডার্ন ইন্টেরিয়র ডিজাইনের অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে স্টাইলিশ আর্টওয়ার্ক। তবে চলুন ঘরের দেয়ালে স্টাইলিশ আর্টওয়ার্ক করার কিছু আইডিয়া সম্পর্কে জানা যাক।

অ্যাবস্ট্রাক্ট আর্ট

অ্যাবস্ট্রাক্ট বা বিমূর্ত আর্ট মডার্ন ইন্টেরিয়রের সাথে মানিয়ে যায় বেশ। ঘরে অতিথি আসলে যেহেতু সবার প্রথম ড্রইং রুমেই বেশি সময় কাটায়, তাই এ রুমের দেয়ালে ভিন্ন কোন ডিজাইনের চেয়ে অ্যাবস্ট্রাক্ট আর্টই মানিয়ে যাবে বেশ। বিভিন্ন রঙের কিছু লাইন, সাদা-কালোর আদলে করা কোন শেপ কিংবা ফর্ম বা ডিজাইন যা বিশেষ কোন অর্থ বহন করছে না এমন আর্ট ড্রইং রুমের দেয়ালে মানিয়ে যাবে। আর তাই ড্রইং রুমের বিশেষ কোন দেয়ালের জন্য অ্যাবস্ট্রাক্ট আর্ট হতে পারে দারুণ এক আইডিয়া।

কার্টুন বা কমিক্স আর্ট

ঘরের সবচেয়ে স্পেশাল রুম হল বাসার সবচেয়ে ছোট সদস্যর জন্য ডিজাইন করা রুমটি। আর তাই বাচ্চাদের রুম জিজাইন করার জন্য বেছে নেয়া যেতে পারে পছন্দের কার্টুন বা কমিক্স এর কোন ক্যারেক্টার। বাচ্চারা সাধারণত দেয়ালে আঁকিবুঁকি করতে এমনিতেই পছন্দ করে। কাগজের থেকে ঘরের দেয়ালের ক্যানভাসই যেন তাদের বেশি পছন্দ। আর তাই কার্টুন এর স্কেচ কিংবা কালারফুল থিম বাচ্চাদের রুমের জন্য হবে বেশ দারুণ এক আইডিয়া। রঙিন থিমে যদি পছন্দের কার্টুন এঁকে নেয়া যায় তবে যেন তাদের শৈশবের মুহূর্ত আরও আনন্দময় হয়ে উঠবে। আর তাই বাসার অন্য রুম থেকে বাচ্চাদের রুমের ডিজাইনে ভিন্নতা আনতে দেয়াল জুড়ে করে নিন কার্টুন ক্যারেক্টার আর্ট।    

জ্যামিতিক আর্ট

অনেকেই লাইন আর্ট বা জ্যামিতিক আর্ট পছন্দ করেন। সেটা হতে পারে কিউবিক, স্কয়ার কিংবা ইলিউশন ধরনের। এ ধরনের ডিজাইন সাধারণত সাদা-কালো থিমে বেশি মানায়। এমনকি অনেক সময় দেয়ালের ডিজাইনের সাথে মিল রেখে রাগস এবং কুশনও জ্যামিতিক ডিজাইনে করা হয়। সেক্ষেত্রে আর্টিস্টিক লুক আনতে সহজেই দেয়ালে করে নিতে পারেন জ্যামিতিক ডিজাইন। স্টাডি রুম কিংবা বেড রুমে এ ধরনের আর্ট করা যেতে পারে।

পেইন্টিং ইন্সপায়ার্ড

অনেকেই আছেন যারা পেইন্টিং দিয়ে ঘরের দেয়াল সাজাতে পছন্দ করেন। সেক্ষেত্রে আপনার পছন্দের আর্টিস্ট কিংবা থিমে পেইন্টিং কিনে সেটা ঘরের দেয়ালে লাগাতে পারেন। অথবা পেইন্টিং ইন্সপায়ার্ড হয়ে ঘরের দেয়ালে নিজেই একটা আর্টওয়ার্ক তৈরি করতে পারেন। সেটা দেখতে ইলিউশনের মতোই দেখাবে। এক্ষেত্রে লিভিং রুমের দেয়াল হবে পারফেক্ট। কেননা লিভিং রুমে গল্প-আড্ডা, বই পড়া কিংবা দিন শেষে ক্লান্ত মুহূর্ত গুলো কাটে। আর তাই দেয়ালে আর্টওয়ার্ক তা একদিকে চমৎকার অনুভূতি যেমন দিবে, তেমনি আর্টওয়ার্কে ফোকাস লাইটের আলো পুরো ঘরের আবহ পাল্টে দিবে।

দারুণ সব ডিজাইনে পেইন্ট করার অভিজ্ঞতা এবার হবে আরও ইন্টারেস্টিং বার্জার এর আর্টিস্টা অ্যাক্রিলিক কালার এর সাথে। বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশের তৈরি বাংলাদেশের প্রথম অ্যাক্রিলিক কালার “বার্জার আর্টিস্টা”। রঙ-তুলির জগতে যারা হারিয়ে যেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য বিশেষ এই অ্যাক্রিলিক কালার পাওয়া যাচ্ছে ৭টি ভিন্ন শেডে। এর মধ্যে রয়েছে টাইটানিয়াম হোয়াইট, ব্ল্যাক, ক্যাডমিয়াম ইয়েলো, কোবাল্ট ব্লু, ভার্মিলিয়ন, ভিরিডিয়ান গ্রিন এবং ইয়েলো ওকার।   

দেয়ালে রঙ তো আমরা হরহামেশা করেই থাকি। কিন্তু সেই দেয়ালে চমৎকার কোন আর্ট করা গেলে তা দেখতে যেমন ইউনিক হয়, তেমনি ঘরের পরিবেশকে আরও দারুণ করে তোলে।  

  •  
  •  
  •  
  •   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *