parallax background

রঙে বানানো রঙিন বাতি

By সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

আপনার ঘরের বাতিটি ঘরভর্তি আলো দিচ্ছে বটে, কিন্তু কেমন হতো যদি এই আলো রঙিন হতো? যদি লাল, নীল, সবুজ রঙে আপনার চিরচেনা ঘরটিকে একদম আচেনা আর অপার্থিব কিছু  মনে হতো? ইচ্ছে করলে কিন্তু এমনটা আপনি করতেই পারেন। আর সেটাও একদম কম খরচে, ঘরে বসে! দেখেই নিন না!

শুরু করবেন কীভাবে?

নিজেই বানান রঙিন ল্যাম্পশেড!

অনেকেই মাথায় নানাকিছু বানানোর পোকা ঘুরপাক খেলেও বাস্তবে আর সেটা কাজে পরিণত করেন না। অনেকের ক্ষেত্রেই সময়ের ওভাবে করা হয়ে ওঠে না। কেউ আবার নানারকম জিনিসপাতি কিনতে হবে ভেবে কাজে হাত দেন না। রঙিন বাতি বা ল্যাম্পশেড বানাতে কিন্তু খুব বেশি সময় বা অনেক জিনিসপাতির দরকার পড়বে না। তাই খানিকটা ইচ্ছে আর নতুন কিছু করার আনন্দ নিয়ে শুরু করে দিন রঙিন ল্যাম্পশেড বানানোর কাজ।

যা যা লাগবে :
ওয়াটারকালার
রঙের ব্রাশ
পেপার টাওয়াল
পানি

কীভাবে বানাবেন?

পদ্ধতিটা সহজ। প্রথমে একটি ল্যাম্পশেড বেছে নিন। ভালো হয় যদি এক্ষেত্রে আপনি সাদা কোন ল্যাম্পশেড বেছে নেন। সেক্ষেত্রে আপনার জন্য নিজের ইচ্ছেমতও রঙ করা অনেক সহজ হয়ে পড়বে। অনেক ল্যাম্পশেডেই আপনি নিজস্ব কিছু আকৃতি খুঁজে পাবেন। তেমন কিছু যদি না পান সেক্ষেত্রে নিজেই কোন আকৃতি তৈরি করে নিন।

এবার আপনার ল্যাম্পশেডটিকে ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিন। সাধারণত কেনার পর ল্যাম্পশেডের গায়ে ধুলো জড়িয়ে থাকে। সেটা ঝেড়ে ফেলুন। এবার ব্রাশে পছন্দসই রঙ নিয়ে ল্যাম্পশেডে আঁকুন। যদি বেশ কিছু রঙের মিশেল করার ইচ্ছে থাকে তাহলে হালকা রঙ থেকে কাজ শুরু করুন। এজন্য রঙের সাথে পানি মিশিয়ে নিন। যদি প্রথমবারের মতো রঙ জলরঙ ব্যবহার করেন, সেক্ষেত্রে কয়েকবার রঙ কাগজে বা অন্য কোথাও পানি মিশিয়ে আঁকার অনুশীলন করুন।

প্রাথমিকভাবে বেছে নিন হালকা কোন রঙ!

রঙে পানি মিশিয়ে নিলে সেটা কাপড়ের উপরে খুব দ্রুত ছড়িয়ে যায়। ল্যাম্পশেডে আপনার করা রঙটা যেন একদম ঠিকঠাক হয় সেটা নিশ্চিত করতে রঙ ব্যবহারের সাথে সাথে কাপড়ের তোয়ালে দিয়ে সেটা মুছে নিন। এতে করে রঙ চারপাশে ছড়িয়ে পড়বে না।

এবার একটু একটু করে অন্য রঙ ব্যবহার করা শুরু করুন। যেহেতু আপনি কীভাবে ল্যাম্পশেড রাঙাবেন সেটা একান্তই আপনার নিজের ইচ্ছে, তাই এক্ষেত্রে যেকোনো রঙ বেছে নিতে পারেন আপনি। ব্যবহার করতে পারেন ইচ্ছেমতো স্থানে। রঙের আভা ইচ্ছে হলে চারপাশে ছড়িয়েও দিতে পারেন। শুধু যে নকশাতে রঙ করতে হবে তা নয়। নকশা বাদেও পুরো ল্যাম্পশেডের উপরে রঙ মাখাতে পারেন আপনি।

আপনার রঙিন ল্যাম্পশেড তৈরি!

এবার ভালো করে ল্যাম্পশেডটিকে শুকিয়ে নিন। এতে করে একটা সময় পর রঙ শুকিয়ে গেলে আপনি ল্যাম্পশেডটিকে সাধারণভাবেই ব্যবহার করতে পারবেন।

ল্যাম্পশেড কিনতে চান?

যাত্রা, কে ক্রাফট, আড়ংয়ের মতো ব্র্যান্ডেড শপ থেকে শুরু করে মিউপুর ১০, সোবহানবাগ, নিউমার্কেট থেকেও ল্যাম্পশেড কিনতে পারেন আপনি। এক্ষেত্রে দাম এবং মানের হেরফের হবে কিছুটা। কারুকার্য এবং তৈরির উপাদানের উপরে ভিত্তি করে ল্যাম্পশেডের দাম ভিন্ন হয়ে থাকে। কাঠ, বাঁশ, লোহা এবং প্লাস্টিকের এই ল্যাম্পশেডগুলো ২০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন আপনি। আর বাড়তি খরচ না করতে চাইলে বাসায় পড়ে থাকা পুরনো ল্যাম্পশেডের কাপড় বদলে নিলেই তাতে পছন্দমত রঙ আর আল্পনা করতে পারবেন আপনি।

তাহলে আর দেরী কেন? এখুনি বসে পড়ুন ল্যাম্পশেডকে সাঁজাতে। ঘরে পরে থাকা সাদা ল্যাম্পশেডটিকে যে সুন্দর দেখাবে তাই নয়, আপনার এই সামান্য চেষ্টাতেই বদলে যাবে আপনার ঘরের চেহারাটাও!

  •  
  •  
  •  
  •   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *